আসামে অশান্তি তৈরি করতে চাইছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজকে মমতাকে বিশ্বশর্মা হিমন্ত কড়া ভাষায় একহাতে নিতে বাধ্য হলেন।

আসামে অশান্তি তৈরি করতে চাইছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজকে মমতাকে বিশ্বশর্মা হিমন্ত কড়া ভাষায় একহাতে নিতে বাধ্য হলেন।

Advertisemen


আসামে অশান্তি তৈরি করতে চাইছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজকে মমতাকে বিশ্বশর্মা হিমন্ত কড়া ভাষায় একহাতে নিতে বাধ্য হলেন।







মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে সাহায্য চাইল অসম সরকার। বৃহস্পতিবার তৃণমূল সাংসদ এবং বিধায়কের প্রতিনিধি দলকে অসমের শিলচর বিমানবন্দরে আটকে দেওয়ার পর, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ‘সুপার ইমারজেন্সি’ চলছে।
শেষমেশ মুখ খললেন হিমন্ত বিশ্বশর্মা।সচিবালয়ে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আমার অনুরোধ তিনি আমাদের সঙ্গে সহযোগিতা করুন। এখানে এসে অসমের পরিস্থিতি খারাপ করবেন না।”
আপনাদেরও নিশ্চয় মনে আছে বাংলাদেশ থেকে আসা মানুষদের প্রতি মমতার একসময় বক্তব্য কি ছিল। সেই মমতাই আজকে পালটি খেয়েছে উলটো হাওয়ায়। আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভোটটা খুব ভাল বোঝেন। তাই আজকের কথার সঙ্গে কালকের কথার মিল পাওয়া যায় না। আর মানুষ তো সত্যিই মাথা মোটা... যাই হোক আসুন হিমন্তের কথায় নজর দেওয়া যাক।


  1. অসমের অর্থ, স্বাস্থ্য সমেত একাধিক দফতরের দায়িত্বে থাকা এই মন্ত্রী বলেন, নাগরিকপঞ্জির চূড়ান্ত খসড়া প্রকাশিত হওয়ার পর দেখা গেল ৪০ লাখ মানুষের নাম নেই। মমতাকে কটাক্ষ করে হিমন্ত বলেন, “মমতা বন্দোপাধ্যায় তো সে বিষয় নিয়ে কোনও ধারণাই নেই।
  2. এ রকম স্পর্শকাতর একটা সময়ে রাজ্যের পক্ষে আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখা কতটা কঠিন, তা তাঁর তো বোঝা উচিত। তিনি নিজেও তো একটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।”
হিমন্তের কথায়: ‘‘আমি সেই কারণেই সহযোগিতা চাইছি তাঁর কাছে। তাঁকে আমি বলতে চাই, এই কঠিন পরিস্থিতিতে একটা স্ফুলিঙ্গ থেকেই দাবানল ছড়িয়ে পড়তে পারে। হিমন্ত স্পষ্ট বলেন, “এটা বয়ানবাজি আর শোরগোল করার সময় নয়।”
Advertisemen

Disclaimer: Gambar, artikel ataupun video yang ada di web ini terkadang berasal dari berbagai sumber media lain. Hak Cipta sepenuhnya dipegang oleh sumber tersebut. Jika ada masalah terkait hal ini, Anda dapat menghubungi kami disini.
Related Posts
Disqus Comments